চোখের যত্ন ও চোখের সুস্থতার জন্য করণীয় ।

ভোরের বাংলাদেশ :চোখ অত্যন্ত মূল্যবান অঙ্গ,চোখ হলো আত্মার প্রতিচ্ছবি যা ফুটিয়ে তোলে আপনার আত্মার শক্তি কতটুকু। চোখ যে মনের কথা বলে,চোখ সেটাই বলে ঠোট যেটা বলতে ভয় পায়। আপনার চোখ তাই দেখে যা আপনার মন দেখতে বলে। তাই তো একই জিনিস একেক জনের কাছে একেক রকম হয়।
কথা না বললেও শুধু চোখের দৃষ্টিই বলে দিতে পারে মানুষের রাগ, দুঃখ, ভয়,অনুভূতি, ভালোবাসা, অভিমান, সত্যি, মিথ্যের মতো মনের নানা কথা৷
চোখের দিকে তাকিয়েই আপনি কখনো মিথ্যা কথা বলতে পারবেন না। এটা করার জন্য আপনাকে অবশ্যই অন্যদিকে তাকাতে হবে। অল্প স্বল্প বিষয়েই যে চোখ হয় অভিমানে সিক্ত,সে চোখ ভালোবাসতে পারে মাত্রাতিরিক্ত।

চক্ষুতনং মহারতনং অর্থাৎ মানব চক্ষু রত্নের মতোই মহামূল্যবান, তাই এমন রত্নকে রাখতে হয় পরম যত্নে। কিন্তু দুঃখের বিষয়ে আমরা চোখের যত্নের বিষয় মোটেও সচেতন নই। চোখে অসুখ হলে নিকটস্থ ওষুধের দোকানদারের উপদেশ মতো ওষুধ লাগাই যার ফলে অনেক সময় বিপদ হয়।অথচ সময় মতো বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী ওষুধ ব্যবহার করলে কোনো বিপদেরই সম্ভাবনা থাকে না।

চোখকে সুস্থ, সুন্দর ও কার্যক্ষম রাখতে আমাদের সচেতনতার সঙ্গে এর যত্ন নেওয়া উচিত। চোখকে সুস্থ ও কার্যকর রাখার জন্য নিম্নের বিষয়গুলো বিবেচনায় রাখা প্রয়োজন। যেমন-
১. সুষম খাদ্য : কার্বোহাইড্রেট, প্রোটিন ও ফ্যাট জাতীয় খাদ্য রোজ পরিমাণ মতো খাবেন এবং সঙ্গে ভিটামিন ও খনিজ পদার্থ খাবেন। ভিটামিন ‘এ’ চোখের জন্য প্রযোজন। রঙিন শাক সবজি ও ফলে বিটা ক্যারোটিন থাকে যা থেকে ভিটামিন ‘এ’ তৈরি হয়। পাকা আম, কলা, পেঁপে, গাজর, মিষ্টিকুমড়া ও লাল শাক ইত্যাদিতে প্রচুর ভিটামিন ‘এ’ আছে।
২. সঠিক আলোতে লেখাপড়া : খুব কম আলোতে যেমন দেখা যায় না আবার তীব্র আলোতেও দৃষ্টিশক্তি কমে যায়। দিনের বেলায় সরাসরি সূর্যের আলোতে না পড়ে ছায়াতে পড়া ভালো। রাতে টিউব লাইটের আলোতে পড়া ভালো, টেবিল ল্যাম্পের আলোতে পড়া যায় তবে খেয়াল রাখতে হবে আলো যেন সরাসরি বইয়ের পাতায় না পড়ে।
৩. বইয়ের ছাপা : স্পষ্ট অক্ষরে ও সঠিক সাইজে ছাপার লেখা ও বাক্যের মাঝে প্রয়োজনীয় ফাঁক, সাদা কাগজের ওপর কালো হরফে খেলা চোখের জন্য উপকারী।
৪. চোখের ব্যায়াম : একটানা অনেকক্ষণ লেখাপড়া বা টেলিভিশন দেখার সময় চোখকে কিছুক্ষণের জন্য বিশ্রাম দেওয়া প্রয়োজন। কিছুক্ষণ চোখ বন্ধ রাখলে চোখের মাংসেপেশি-গুলো শিথিল হবে, যার ফলে পরবর্তীতে দেখার কাজ অনেকটা আরামদায়ক হবে।
৫. টিভি দেখা : মৃদু আলোতে টিভি দেখাই ভালো। অন্ধকারে উজ্জ্বল আলো চোখের ওপর চাপ সৃষ্টি করে। দিনের বেলায় টিভি দেখার সময় জানালায় পর্দা থাকা ভালো।
৬. চশমা নেয়া : চোখের যত্নের অন্যতম উপায়। অন্যথায় চোখে অলস হয়ে Amblyopia হতে পারে অথবা ট্যারা।
টেক হোম ম্যাসেজ : * সঠিক আলোতে লেখাপড়া করবেন * বই খাতা থেকে চোখের দূরত্ব এক ফুট রাখবেন * টেলিভিশন ৯ ফুট দূর থেকে দেখবেন * PC বা Laptop-এ কাজ করার সময় বারবার পলক ফেলবেন। সর্বশেষ বছরে একবার চক্ষু পরীক্ষা করবেন।

এই রকম আরো কিছু খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button