এখনও বন্ধ ই-পাসপোর্টের অনলাইন পোর্টাল

অনলাইনে ই-পাসপোর্টের আবেদন বন্ধ থাকায় ভোগান্তিতে পড়েছেন অনেকে। ই-পাসপোর্টের ওয়েবসাইটে আবেদনের সুযোগ না থাকায় অনেকেই আগারগাঁওয়ের পাসপোর্ট অফিসে এসে ফিরে যাচ্ছেন। পাসপোর্ট অধিদফতর জানিয়েছে, ডেটা সেন্টারের পরীক্ষামূলক কার্যক্রমের কারণে বন্ধ আছে ই-পাসপোর্টের অনলাইন পোর্টাল। মঙ্গলবার থেকে কার্যক্রম স্বাভাবিক হবে বলে জানান তারা।

সোমবার আগারগাঁওয়ের পাসপোর্ট অধিদফতরের সামনে অনেককেই দেখা গেছে তথ্য ও অনুসন্ধান কেন্দ্রে ভীড় করতে।

পাসপোর্ট অধিদফতর জানিয়েছিল, ডিজাস্টার রিকভারি সাইট (ডিআরএস)-এ ওএটি এবং ফেইল-ওভার টেস্ট করতে ১৫ ও ১৬ মার্চ ই-পাসপোর্ট সেবা কার্যক্রম বন্ধ থাকবে। এই দুই দিনের আবেদনকারীদের ২০ ও ২১ মার্চ সেবা দেওয়া হবে। কিন্তু ২১ মার্চও সার্ভার জটিলতায় অনলাইনে আবেদন করা যায়নি।

মিরপুর ১২ নম্বর থেকে এসেছেন আদনান আনিস। তিনি বলেন, আমার জরুরি পাসপোর্ট করা দরকার। অথচ কয়েকদিন ধরেই অনলাইনে আবেদন করতে পারছি না। কবে ঠিক হবে তাও জানা যাচ্ছে না। এভাবে একটা দেশের পাসপোর্ট আবেদন বন্ধ থাকা নজিরবিহীন।

আনজুম আরা এসেছেন মোহাম্মদপুর থেকে। তাকেও ফিরে যেতে হচ্ছে। তিনি বলেন, আমার ছেলে আমেরিকা থাকে, তার কাছে যাবো। এখন পাসপোর্টের জন্য অনলাইনে আবেদন করা যাচ্ছে না। এখানে এসেও কোনও তথ্য পেলাম না।

এদিকে ই-পাসপোর্ট এর ওয়েবসাইটেও দেখা গেছে, মেরামতের জন্য আবেদন বন্ধ থাকার নোটিস ঝুলছে।

২০২০ সালের ২২ জানুয়ারি ই-পাসপোর্ট ও স্বয়ংক্রিয় নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থার উদ্বোধন করা হয়। এ পর্যন্ত প্রায় ৩৩ লাখ মানুষ ই-পাসপোর্টের আবেদন করেছেন। এ পর্যন্ত ২৬ লাখ ২২ হাজার ৩০০ জনকে ই-পাসপোর্ট দিতে পেরেছে পাসপোর্ট অধিদফতর।

পাসপোর্ট অধিদফতর সূত্র জানায়, ঢাকা ও যশোরে ই-পাসপোর্টের জন্য সার্ভার রয়েছে। ঢাকায় সার্ভারটি মূল ও যশোরেরটি সেকেন্ডারি। ঢাকার সার্ভার কোনও কারণে কার্যকর না থাকলে যশোরেরটিতে কার্যক্রম চলার কথা আছে। যশোরের সার্ভারটি কতখানি কার্যকর তা যাচাই করতে পরীক্ষামূলক চালু করার সিদ্ধান্ত নেয় পাসপোর্ট অধিদফতর। ১৫ ও ১৬ মার্চ যশোরের সার্ভার কার্যকর হয় এবং পরীক্ষাও সফল হয়। তবে যশোর সার্ভার থেকে ফের ঢাকার সার্ভারে কার্যক্রম শুরু করতে গিয়েই দেখা দেয় জটিলতা। এর সমাধান না হওয়াতেই অনলাইনে আবেদন করা যাচ্ছে না।

এ বিষয়ে ই-পাসপোর্ট অ্যান্ড অটোমেটেড বর্ডার কনট্রোল ম্যানেজমেন্ট প্রকল্পের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোহাম্মদ সাদাত হোসেন বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ঢাকার সার্ভার বন্ধ করে যশোরেরটি চালু হয়েছিল। এখন ঢাকার সার্ভার চালু করা হচ্ছে। তবে কিছু কানেক্টিভিটি ডাউন হয়েছে। একারণে অনলাইনে ই-পাসপোর্টের আবেদন করা যাচ্ছে না। তবে অন্যান্য কার্যক্রম স্বাভাবিক আছে। পাসপোর্ট মুদ্রণ, বিতরণ সবই হচ্ছে। আশা করছি মঙ্গলবার সকালের মধ্যেই আবার আবেদন করা যাবে।

এই রকম আরো কিছু খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button